English
মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০
...

বাংলাদেশে করোনায় একদিনে সর্বোচ্চ ৮৮৭ জন আক্রান্ত, মৃত ১৪

করোনা ভাইরাস

ঢাকা, ১০ মে ২০২০, রবিবারঃ বাংলাদেশে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে গতকাল একদিনে সর্বোচ্চ সংখ্যক ১৪ জন মারা গেলেন আর নতুন করে সর্বোচ্চ সংখ্যক আক্রান্ত হলেন ৮৮৭ জন। এ নিয়ে দেশে এযাবৎ করোনায় মোট ২২৮ জন মানুষ মৃত্যবরণ করলেন। আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১৪ হাজার ৬৫৭ জনে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত অনলাইন হেলথ বুলেটিনে অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা এসব তথ্য জানান। তিনি বলেন, গতকালের চেয়ে আজ ২৫১ জন বেশি আক্রান্ত হয়েছেন। গতকাল আক্রান্ত হয়েছিলেন ৬৩৬ জন।

মহাপরিচালক বলেন, "দেশে করোনায় শনাক্ত বিবেচনায় এখন পর্যন্ত পাওয়া তথ্যের বিশ্লেষণে সুস্থতার হার ১৮ দশমিক ১০ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৫ শতাংশ।"

ডা. নাসিমা সুলতানা জানান, করোনাভাইরাস শনাক্তে গত ২৪ ঘণ্টায় ৫ হাজার ৬৪২টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। আগের কিছু নমুনাসহ এ সময়ে ৫ হাজার ৭৩৮টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট নমুনা পরীক্ষা করা হলো এক লাখ ২২ হাজার ৬৫৭টি।

তিনি জানান যে, "এসব নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৩৬টি ল্যাবে। নতুন করে আরেকটি ল্যাব সংযোজিত হয়েছে, নতুন সংযোজিত ল্যাবটি হলো চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের ল্যাব।"

তিনি জানান, " করোনা‍য় মারা যাওয়া ১৪ জনের মধ্যে ১০ জন পুরুষ ও ৪ জন নারী। বয়স বিশ্লেষণে ৪ জন নারীর মধ্যে ৩০ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ১ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১ জন এবং ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে রয়েছেন ২ জন। ১০... জন পুরুষের মধ্যে ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ৪ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ২ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ৩ জন এবং ৯১ থেকে ১০০ বছরের মধ্যে রয়েছেন ১ জন।"

অতিরিক্ত মহাপরিচালক আরও জানান, "গত ২৪ ঘন্টায় ব্যক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রী (পিপিই) সংগ্রহ হয়েছে ২৭ হাজার ৯৯৫টি। বিতরণ হয়েছে ৩১ হাজার ৬শ’টি। এ পর্যন্ত সংগ্রহ ২১ লাখ ২১ হাজার ২৮৫টি। বিতরণ হয়েছে ১৭ লাখ ১০ হাজার ৮১৪টি। বর্তমানে ৪ লাখ ১০ হাজার ৪৭৩টি পিপিই মজুদ রয়েছে।"

তিনি জানান, "গত ২৪ ঘন্টায় হটলাইন নম্বরে ১ লাখ ৩৫ হাজার ১৬৯টি এবং এ পর্যন্ত প্রায় ৪৫ লাখ ২২ হাজার ৮৪৮টি ফোন কল রিসিভ করে স্বাস্থ্য সেবা ও পরামর্শ দেয়া হয়েছে।"

উল্লেখ্য, গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয় বলে জানায় সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)। আর ১৮ মার্চ প্রথম একজনের মৃত্যুর সংবাদ জানানো হয়। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সকলকে স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে মেনে চলতে তিনি সকলের প্রতি আহবান জানান।

ডা. নাসিমা সুলতানা বলেন, "করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে সবাইকে ঘরে থাকা, রমজানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, বেশি বেশি পানি ও তরল জাতীয় খাবার, ভিটামিন সি ও ডি সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া, টাটকা ফলমূল ও সবজি খাওয়াসহ শরীরকে ফিট রাখতে নিয়মিত হালকা ব্যায়াম এবং স্বাস্থ্য অধিদফতর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শ-নির্দেশনা মেনে চলার অনুরোধ জানানো হয়।"




মন্তব্য

মন্তব্য করুন